লামায় জীনামেজু উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন উদ্বোধন করলেন আলীকদম সেনা জোন কমান্ডার


Momtaj Uddin Ahamad প্রকাশের সময় : মে ২৮, ২০২৩, ১:৫৫ অপরাহ্ন /
লামায় জীনামেজু উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন উদ্বোধন করলেন আলীকদম সেনা জোন কমান্ডার

মমতাজ উদ্দিন আহমদ
লামা উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে ২৮ মে (রবিবার) জীনামেজু অনাথ আশ্রম উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবন উদ্বোধন করেছেন আলীকদম সেনা জোনের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ সাব্বির হাসান, পিএসসি।
জানা গেছে, পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নের ধারাকে অব্যহত রাখার প্রত্যয়ে পাহাড়ে শিক্ষার আলো ছড়াতে আলীকদম সেনা জোনের সহায়তায় এ ভবনটি নির্মিত হয়।


উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ক্যাপ্টেন আজিজুল হাকিম প্রিন্স, সাংবাদিক রুহুল আমিন, জীনামেজু অনাথ আশ্রমের প্রতিষ্ঠাতা উনন্দ মালা ভিক্ষু, ফাঁসিয়াখালী ইউপি’র চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুর হোসেন, ইয়াংছা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মফিজ উদ্দিন, জীনামেজু উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা বদুর আলম, ২৮৫ নং সাংগু মৌজার হেডম্যান চংপাত ও ফাঁসিয়া খালী ইউপি সদস্য মংমিগ্য প্রমুখ।
প্রধান অথিতির বক্তব্যে জেনা কমান্ডার লেঃ কর্ণেল মোঃ সাব্বির হাসান পিএসসি বলেন, পাহাড়ি এ এলাকায় শিক্ষার প্রসার ঘটাতে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছিলেন সাবেক জোন কমান্ডার লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান, পিএসসি। এরপর বনপুর-সাংগু মৌজায় অবহেলিত ও বঞ্চিত ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষার উন্নয়ন ঘটাতে আলীকদম জোনের সার্বিক তত্বাবধানে এ বিদ্যালয়টির নির্মাণ কাজ শুরু হয়।


তিনি বলেন, শিক্ষা অমুল্য সম্পদ। একটি জাতির বিকাশ ও উন্নয়নের জন্য শিক্ষার ভূমিকা অপরিহার্য। শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। মেরুদন্ড ছাড়া মানুষ যেমন চলাচল করতে পারেনা, তেমনি শিক্ষা ছাড়া জাতি উন্নতির শিখরে আরোহণ করতে পারেনা।
তিনি আরও বলেন, নিরক্ষরতা সমাজের শত্রু, দেশের শত্রু, জাতির শত্রু। যে জাতি যত বেশি শিক্ষিত সে জাতি তত বেশি উন্নত লাভ করেছে। তাই শিক্ষাকে সহজলভ্য করে প্রতিটি মানুষের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেওয়ার উপায় আমাদের উদ্ভাবন করতে হবে। তবেই দেশের জনগণ আদর্শ শিক্ষায় শিক্ষিত হবে। আর জনগণ শিক্ষিত হলে দেশ ও জাতি উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছাবে।
প্রধান অতিথি আরও বলেন, আলীকদম জোন প্রতিমাসেই আলীকদম এবং লামা উপজেলায় বিভিন্ন মাদরাসা, এতিমখানা, স্কুল, কলেজসহ সর্বমোট ২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষক-শিক্ষিকা, গরীব ও দুঃস্থ পরিবার, এবং আলীকদম মুরুং কমপ্লেক্সের ছাত্র-ছাত্রীদের খাবারের জন্য অনুদান প্রদান করে আসছে। লামা ও আলীকদমে মৈত্রী ও প্রত্যয়ী স্কুলসহ পনেরটির অধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করেছে। সেনা জোনের উদ্যোগে আর্থিক সহায়তার পাশাশি বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ঔষধ বিতরণ করা হয়। এ কার্যক্রম ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে।