বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে হুশিয়ারি : আলীকদমে চেয়ারম্যান প্রার্থী কালামকে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে


Momtaj Uddin Ahamad প্রকাশের সময় : মে ৭, ২০২৪, ৮:৩৫ পূর্বাহ্ন /
বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে হুশিয়ারি : আলীকদমে চেয়ারম্যান প্রার্থী কালামকে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে

।। মমতাজ উদ্দিন আহমদ ।।

‘আলীকদম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবুল কালাম বিএনপির নাম ভেঙ্গে নেতা-কর্মীদের বিভ্রান্ত করছেন। তিনি ২০১৯ সালে বিএনপির সকল পদ থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার হয়েছেন। বান্দরবান জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রেজাকে নিয়ে তিনি ৫ মে পান বাজারের পথসভায় যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে প্রমাণ হয় আবুল কালাম মানসিকভাবে অসুস্থ।’

মঙ্গলবার (৭ মে) স্থানীয় অর্কিড রেস্টুরেন্টে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এমন দাবী করেছেন আলীকদম উপজেলা বিএনপির নেতারা।

বান্দরবান জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান কালামের কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যের প্রতিবাদে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্য দেন উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক মাশুক আহমদ ও যুগ্ম আহ্বায়ক জুলফিকার আলী ভুট্টো।

উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক মাশুক আহামদ বলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত থাকায় আলীকদমে বিএনপি সমর্থিত কোনা প্রার্থী নেই। নেতাকর্মীরাও ভোট বয়কট করবে। আলীকদমে চেয়রম্যান প্রার্থী বিএনপির বহিস্কৃত নেতা। তিনি দলটির বান্দরবান জেলা সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ  বক্তব্য দিয়ে মিথ্যাচার করেছেন।

যুগ্ম আহ্বায়ক জুলফিকার আলী ভূট্টো বলেন, চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কালাম মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে না পড়লে এমন মিথ্যাচার করতেন না। পাগলামী ও রাজনৈতিক দেউলিয়ত্ব থেকেই জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রেজার বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি আবুল কালামকে সর্তক হতে বলেছেন অন্যথায় দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়ার হুশিয়ারি দেন।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুবদলের আহ্বায়ক মোঃ ইলিয়াছ, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মারুফ উদ্দিন, নয়াপাড়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ফরিদুল আলম, ছাত্রদল সেক্রেটারী সাদ্দাম হোসেন ও উপজেলা কৃষকদল সভাপতি মীর কাসেম ছুট্টো। এছাড়াও দলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, আলীকদমে বিএনপির সকল স্তরের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা ভোট বর্জন করবে। চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কালামের পিতা আলীকদম উপজেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন না। মিথ্যা বক্তব্য দিচ্ছেন আবুল কালাম।

এছাড়াও তার ৪ বার বিএনপির সভাপতি ও ১৭ বছর যুবদলের সভাপতি দাবীটি মিথ্যা। তিনি উপজেলা বিএনপির ১ বার আহ্বায়ক ও ১ বার সভাপতি ছিলেন মাত্র। আলীকদমে বিএনপির প্রথম কমিটি গঠিত হয়েছিল ১৯৯১ সালে সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদ আহাম্মদের নেতৃত্বে। সেখানে আলীমুদ্দিন চেয়ারম্যান ছিলেন না।

জানতে চাইলেন বলেণ, চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কালামকে ২০১৯ সালের ৩ মার্চ বিএনপি থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা হয়। সুতরাং তিনি দলের কেউ নন।

কেন্দ্রীয় বিএনপির সিদ্ধান্ত অমান্য করে চেয়ারম্যানপ্রার্থী কালামের পক্ষে নির্বাচন করায় ইতোমধ্যে উপজেলা বিএনপি থেকে যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ ইউনুচকে বহিস্কার করা হয়েছে।

একই কারণে চৈক্ষ্যং বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক বদর উদ্দিন, আব্দুস সালাম, সদর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস শুক্কুর, সদর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি মোঃ আবুল হাশেমকে শোকজ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মিয়ানমার থেকে অবৈধ গরু চোরাচালনকারী বলে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবুল কালাম গত ৫ মে রাতে আলীকদমের পান বাজারের একটি পথসভায় বান্দরবান জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রেজাকে গুন্ডা বলে অবহিত করেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত এক ভিডিও বক্তব্যে গুন্ডা ডাকার জেরে আলীকদমের সাধারণ জনগণ ও স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে, যা এলাকায় বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।