আলীকদম-ফাঁসিয়াখালী সড়কে ইয়াংছা বেইলি সেতু ঝুঁকিতে : যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশংকা


Momtaj Uddin Ahamad প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৫, ২০২৩, ৯:২৩ পূর্বাহ্ন /
আলীকদম-ফাঁসিয়াখালী সড়কে ইয়াংছা বেইলি সেতু ঝুঁকিতে : যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশংকা

মো. নুরুল করিম আরমান, লামা

বান্দরবান সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতাধীন আলীকদম-ফাঁসিয়াখালী সড়কের ইয়াংছায় বেইলী সেতুটি জরাজীর্ণ হয়ে ঝুঁকিতে রয়েছে। এ সেতুটি লোহার পাইপ বেঁধে সচল রাখা হয়েছে।

সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ার সত্যতা নিশ্চিত করেন বান্দরবান সড়ক বিভাগের লামা উপজেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী প্রকৌশলী পুর্ণেন্দ্র বিকাশ চাকমা।

‘সেতুর দু-পাশে ‘ঝুঁকিপূর্ণ সেতু’, সর্বোচ্চ ৫ টন মালামাল গাড়িতে পরিবহন করা যাবে’-সড়ক ও জনপথ বিভাগের এমন বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে সড়ক ও জনপদ বিভাগ। তা মানছে না এ সড়কে চলাচলকারী গাড়িগুলো। পাঁচগুণেরও বেশি মালামাল নিয়ে যান চলাচল করছে। দেখার কেউ নেই।

ফলে কক্সবাজার জেলার চকরিয়া, বান্দরবান জেলার লামা ও আলীকদম উপজেলার সাথে সংযোগ স্থাপনকারী এ সড়কে যেকোন মুহুর্তে যোগাযোগ ব্যাহত হওয়ার আশংকা রয়েছে।

চলতি মৌসুমে তামাক ও নির্মাণ কাজের পাথর বোঝাই যান চলাচলের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ এ সেতুটি যে কোনো সময় ভেঙে পড়ে বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন সড়কে চলাচলকারী যাত্রী, গাড়িচালক ও স্থানীয়রা।

লামা ও আলীকদম উপজেলার সাধারণ মানুষের সড়কপথে যোগাযোগের একমাত্র পথ আলীকদম-লামা-ফাঁসিয়াখালী সড়ক। চকরিয়া উপজেলার বমু বিলছড়ি ইউনিয়নের মানুষও ওই দুই উপজেলা সদরে যোগাযোগের জন্য এই সড়কটিকে ব্যবহার করেন।

এ সড়কের ইয়াংছা বাজার সংলগ্ন সেতুটির উপরের পাটাতনের বিভিন্ন অংশ ক্ষয়ে গেছে। এতে সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় পাশে লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে সামান্য মেরামতের কাজ করা হয়; কিন্তু এতে বিপদের ঝুঁকিটা রয়েই গেছে।

কারণ ৫ টনের সেতুর উপর দিয়ে পাথর, ইট, তামাক ও কাঠ বোঝাই ২৫-৩০ টন ওজনের ভারী গাড়িও চলাচল করছে প্রতিনিয়ত।

সরেজমিনে ইয়াংছা গিয়ে দেখা যায়, বেইলি সেতুটি জরাজীর্ণ হওয়ায় সড়ক বিভাগ জোড়াতালি দিয়ে, মাঝে মধ্যে সংস্কার করে যান চলাচলের জন্য সচল রেখেছে। কিন্তু সেতুটি এতটাই জরাজীর্ণ যে, বেইলি সেতুকে টিকিয়ে রাখতে আলাদা লোহার পাইপের সাহায্যে ঠেস দিয়ে সেতুটি কোনো মতে চলছে।

ইয়াংছা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় ব্যবসায়ী আবুল কালাম, আওয়ামী যুব মহিলা লীগের সভাপতি রোকেয়া বেগম কাজলসহ অনেকে জানান, বর্তমানে ইয়াংছা এলাকার বেইলি সেতুটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এ সেতুটি চালু রাখতে সেতুর স্বাভাবিক খুঁটির পাশাপাশি নিচের অংশে আলাদাভাবে পাইপ দিয়ে বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এরপরও প্রতিনিয়ত ২০-৩০ টনের বেশি যান চলাচলের কারণে যেকোনো সময় সেতুটি ভেঙে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই এলাকার জনসাধারণের স্বার্থে সেতুটি জরুরি ভিত্তিতে পুনঃনির্মাণ জরুরি হয়ে পড়েছে বলে জানান তারা।

বান্দরবান সড়ক বিভাগের লামা উপজেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী প্রকৌশলী পুর্ণেন্দ্র বিকাশ চাকমা জানান, লামা উপজেলায় যেসব বেইলি সেতু রয়েছে, এর মধ্যে ইয়াংছা সেতুটি ৫০ মিটার দীর্ঘ। সেতুটি বর্তমানে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সেতুটি সচল রাখতে আলাদাভাবে পাইপ দিয়ে ঠেস দিয়ে রাখা হয়। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশা করি দ্রুত অনুমোদন সাপেক্ষে এই বেইলী সেতুটি ভেঙ্গে নতুন করে পাকা গার্ডার সেতু নির্মাণ কাজ শুরু করা হবে।